1. admin@narsingdirkanthosor.com : admin :
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন

নরসিংদী জেলা ছাত্রদল সভাপতি গ্রেপ্তার, পিস্তল ও গুলি উদ্ধার

নরসিংদী প্রতিনিধি
  • প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২৩
  • ১৬৮ বার

নরসিংদী প্রতিনিধি : নরসিংদী জোড়া হত্যা মামলায় জেলা ছাত্রদল সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান নাহিদকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিত্বে একটি বিদেশী পিস্তল ও ০২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার হয়। ঢাকার শহাবাগ থানাধীন সোহরাওয়ার্দী উদ্দানের সামনে হতে নরসিংদী ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

আজ শুক্রবার সকাল ৯টার সময় গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি খোকন চন্দ্র সরকার। এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ।

গোয়েন্দা পুলিশের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ছাত্রদলের বহিস্কৃত নেতা সাদেকুর রহমান সহ জোড়া হত্যামামলায় এজাহার নামিয় আসামি ছিলেন জেলা ছাত্রদল সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান নাহিদ। হত্যাকান্ডের পর থেকে সে গা ঢাকা দিয়েছিল। বৃহস্পতিবার ঢাকার ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট তথা শাহাবাগ এলাকায় অবস্থান করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি খোকন চন্দ্র সরকার নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের একটি দল ওই এলাকায় অভিযান চালায়।

পরে শাহাবাগ এলাকা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সামনে থেকে নহিদকে গ্রেপ্তার করে। পরে তাকে নিয়ে অভিযানে নামে পুলিশ। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিত্বে নরসিংদী মডেল থানাধীন চিনিশপুর সাকিনে খায়রুল কবির খোকনের বাড়ির ২য় তলার উত্তর পাশের বাথরুমের ফলস ছাদের পশ্চিম পাশে লুকানো অবস্থায় একটি বিদেশী পিস্তল ও ০২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার হয়।

পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (আইইবি) মিলনায়তনে ছাত্র ঐক্যের কনভেনশন চলাকালে নাহিদকে আইন শৃংখল্যা বাহিনির পরিচয়ে আটক করে। পরে তাকে চোখ বেধে গাড়ীতে তুলে নিয়ে যায়। ওই সময় তার সাথে ছাত্রদলের দুই কর্মী ছিলেন। তাদেরকেও নিয়ে আসে। পরে তাদেরকে মাধবদী এসে ছেড়ে দেয়।

এর আগে বিএনপির আন্দোলন ঠেকাতে ২০১৭ সালে আইন শৃংখলা বাহিনির পরিচয়ে নাহিদকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। পরে ৯ মাস গুম থাকার পর অস্ত্র উদ্ধার দেখিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি খোকন চন্দ্র সরকার বলেন, জোড়া হত্যামামলায় পলাতক আসামী ছিলেন জেলা ছাত্রদল সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান নাহিদ। গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেখানো তথ্যের ভিত্তত্বে খায়রুল কবির খোকনের বাড়ির ২য় তলার উত্তর পাশের বাথরুমের ফলস ছাদের পশ্চিম পাশে লুকানো অবস্থায় একটি বিদেশী পিস্তল ও ০২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার হয়। তার বিরুদ্ধে ১৬টি মামলা রয়েছে।

ছাত্রদল সভাপতিকে আটকের পর পর তৎক্ষনিক প্রেপ্তারে বিষয়টি প্রকাশ করেনি পুলিশ। তাই এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এক বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক বিরোধীদলীয় কোনো নেতাকর্মীকে আটক এবং হদিস না দেওয়াটা ভয়াবহ অমানবিক ও দস্যুবৃত্তিমূলক কাজ। আওয়ামী শাসকগোষ্ঠী ক্ষমতায় থেকে এ ধরনের ঘটনাকে একটি সংস্কৃতিতে পরিণত করেছে। রাষ্ট্রের মদদে এখনও বিরোধী দল নিধনে বেপরোয়া কর্মকান্ড পরিচালিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, সিদ্দিকুর রহমান নাহিদকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তুলে নিয়ে যাওয়া ও হদিস না দেওয়ার লোমহর্ষক ঘটনা নিঃসন্দেহে অশুভ উদ্দেশ্য প্রণোদিত। সিদ্দিকুর রহমান নাহিদ নিখোঁজ থাকার ঘটনায় তার পরিবার ও বিএনপি নেতাকর্মীরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। অবিলম্বে তাকে প্রকাশ্যে উপস্থিত করার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

উল্লেখ্য, নরসিংদী জেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটি ঘোষনার পর থেকে কমিটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে নামে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত ও বহিকৃত নেতারা। চলতি বছরের ২৬ মে ছাত্রদলের বহিস্কৃত নেতা নিহত সাদেকুর রহমান ও মাইনুদ্দিনের নেতৃত্বে মটর সাইকেল বহর নিয়ে তাদের শত শত সমর্থক কমিটি বাতিলের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করে।

ওই সময় চিনিশপুর বিএনপি অস্থায়ী কার্যালয়ের অদূরে দুবৃত্বদের ছোড়া গুলিতে নিহত হয় সাদেকুর রহমান ও আশরাফুল ইসলাম গুলিবিদ্ধ হয়। পরে ঢাকা মেডিক্যল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর প্রথমে সাদেক ও পরে আশাফুল মারা যায়। ওই ঘটনায় বিএনপির যুগ্মমহাসচিব খায়রুল কবির খোকন,তার স্ত্রী ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নাহিদ সহ বিএনপির ৩০ নেতার বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

আরো খবর..
© নরসিংদীর কন্ঠস্বর
Developed By Bongshai IT