1. admin@narsingdirkanthosor.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন

বেলাবতে অভিযান, ১১০ বছরের বেদখলকৃত জমি উদ্ধার

আলমগীর পাঠান | নরসিংদীর কন্ঠস্বর :
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ২৭ জুন, ২০২২
  • ১৯৩ বার

আলমগীর পাঠান, নিজস্ব প্রতিবেদক : ১১০ বছর ধরে বেদখলকৃত ১২ শতাংশ সরকারী জমি উদ্ধার করেছে বেলাব উপজেলা প্রশাসন। বেদখলকৃত জমি উদ্ধার জমির আনুমানিক বাজার মূল্য এক কোটি বিশ লক্ষ টাকা।

আজ সোমবার (২৭ জুন) সকালে আদালতের রায়ে বেদখলে থাকা উল্লেখিত জমি উদ্ধারে এক অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান পরিচালনার সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আক্তার হোসেন শাহিন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীনুর আক্তার, কানুনগো-কাম সার্ভেয়ার আরিফুল ইসলাম, বেলাব সদর ইউপি চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী সাফি প্রমূখ।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সূত্রে জানা যায়, বেলাব বাজারের সিএস ২২ দাগে ১০৩২ শতাংশ জমি জমিদার আয়েশা খাতুনের নামে রেকর্ড ছিল। উক্ত ভূমি রেকর্ডের ধারাবাহিকতায় আর.এস ৪৭ নং দাগে ১২ শতাংশসহ আরো ১০টি দাগে মোট ১০৩২ শতাংশ জমি ০১ নং খাস খতিয়ানভূক্ত সরকারের নামে রেকর্ড করা হয়।

সরকার কর্তৃক উক্ত বাজারভুক্ত পেরীফেরী চান্দিনা ভিটির ভূমি একসনা বন্দোবস্তের উদ্যোগ গ্রহণ করলে স্থানীয় আব্দুল্লাহ আল কাশেম এস. এ মালিকানা দাবী করে বেলাব সহকারী জজ আদালতে একটি দেওয়ানী মামলা দায়ের করেন।

ফলে উল্লেখিত জমির উপর আদালত কর্তৃক অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারী করে। পরবর্তীতে রাষ্ট্র পক্ষ নরসিংদী বিজ্ঞ জেলা জজ বরাবরে আপীল করলে দেওয়ানী মামলার যাবতীয় কার্যক্রম স্থগিতাদেশ প্রদান করে। স্থগিতাদেশ পাওয়ার পর সরকারী জিপির আইনগত মতামত নিয়ে সরকারী জমিতে অবৈধভাবে থাকা অবৈধ দখলদার থেকে উক্ত জমি উদ্বার করা হয়।

উল্লেখ্য যে, ১০৩২ শতাংশ জমির মধ্যে ১০ শতাংশ জমিতে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন তৈরী করা হয়েছে,৩৫০ শতাংশ জমিতে শেখ রাসেল মিনি ষ্টেডিয়াম,৬০ শতাংশ জমিতে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী ও বাকি জমি তোহা বাজার হিসাবে ব্যবহার করা হবে।

বেলাব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আক্তার হোসেন শাহিন জানান, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এর নির্দেশনায় বেদখলকৃত সকল জমি উদ্ধার অভিযান অব্যাহত থাকবে।

আরো খবর..
© নরসিংদীর কন্ঠস্বর
Developed By Bongshai IT