1. admin@narsingdirkanthosor.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৩৩ অপরাহ্ন

ঘোড়াশালে ঈদুল আজহার উৎসবে বিনোদনপ্রেমীদের ঢল

সাব্বির হোসেন | নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ১১ জুলাই, ২০২২
  • ১৭৬ বার

সাব্বির হোসেন, নিজস্ব প্রতিবেদক : নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশালে ট্রেন দুর্ঘটনার ঝুঁকি উপেক্ষা করে হাজারো বিনোদন প্রেমী মানুষ ঝড়ো হয়ে ঈদুল আজহার দিন ও পরের দিন বিকেল থেকে সন্ধা পর্যন্ত উৎসবে মেতে উঠে।

শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর ঘোড়াশাল ব্রীজ,রেলওয়ে স্টেশন ও রেললাইনে হাজারো বিনোদন প্রেমী মানুষ একে অপরের সাথে আনন্দ ভাগাভাগি করার দৃশ্য ছিল চোখে পড়ার মতো। পলাশ উপজেলায় কোনো বিনোদন কেন্দ্র না থাকায়
এই স্থানগুলো বিনোদন প্রেমী মানুষের কাছে সময়ের পালাক্রমে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ঈদ উৎসব ছাড়াও বিভিন্ন উৎসবে প্রতিদিন বিকেল থেকে সন্ধা পর্যন্ত পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরাঘুরি করতে ভিড় জমায় দর্শনার্থীরা।

পলাশ উপজেলাসহ গাজীপুরের কালীগঞ্জ থেকে হাজারো বিনোদন প্রে­মী মানুষ জীবনের খানি­কটা ইতি টেনে বিকেল থে­কে সন্ধা পর্যন্ত বন্ধু-বান্ধব, পরিবার পরিজন, আত্মীয় -স্বজন, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গ, কবি, লেখক, রাজনীতিবিদ, ডাক্তার­ ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মা­নুষ ছুটে আসে এখানে।

সুন্দর মুহুর্ত­গুলো ক্যামেরা বন্দি করতে কেউ বন্ধুদের নিয়ে, কেউ সহপাঠীদের নিয়ে, কেউবা বাবা-মা, আত্নীয়স্বজনদের সঙ্গে সেলফি তোলা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্টেশন ঘিরে বসেছে বিভিন্ন দোকান পাঠ, কেনাকাটা চলছে তুমুল। মানুষের আনন্দের শেষ নেই।

ঘুরতে আসা ঘোড়াশালের আটিয়া গা গ্রামের সাবিনা ইয়াসমিন জানান, ঈদুল আজহা উপলক্ষে পরিবার পরিজন নিয়ে এখানে এসে আনন্দ ভাগ করতে অনেক ভাল লাগছে। উন্মুক্ত পরিবেশে ঘুরতে আসার মজাই আলাদা­। যদিও এখানে ঘুরতে অাসা অনেকটাই ঝুঁকি থাকে। যেকোন কোন সময় ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এজন্য চারদিকে খেয়াল রেখেই আনন্দঘন সময় কাটিয়েছি।

ডাংগার সান্তানপাড়ার গ্রামের কামরুজ্জামান জানান, পলাশ উপজেলায় কোন বিনোদন কেন্দ্র না থাকায় বিকল্প হিসেবে এই স্থানকে বেছে নিতে হয়েছে। তাছাড়া এখানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যও কোন অংশে কম নয়। বিনোদন প্রেমী মানুষের জন্য ঘোড়াশালে ভাল মানের একটি পার্ক থাকলে অনেক ভাল হতো।

অন্যান্য দর্শণার্থীরা আরো জানান, এই স্টেশন এলাকা এখন আমাদের জন্য অস্থায়ী বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। এখানে বিভিন্ন উৎসবে অনেকটাই ঝুঁকি নিয়েই হাজারো মানুষ জড়ো হয়। পলাশ উপজেলায় একাধিক বিনোদন কেন্দ্র নির্মিত হলে আমাদের এখানে আসা প্রয়োজন হবে না।

স্থানীয় সুশীল সমাজ ও জনপ্রতিনিধিরা জানান, ঝুঁকি নিয়ে এখানে সময় কাটাতে আসা কোনভাবেই কাম্য নয়। ঈদ উৎসব ও অন্যান্য উৎসবে বিনোদনপ্রেমীরা ঘোড়াশাল ব্রীজ, রেললাইন ও রেলস্টেশন এলাকায় যেন জড়ো না হয় সেজন্য এখনই প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।

আরো খবর..
© নরসিংদীর কন্ঠস্বর
Developed By Bongshai IT